মঙ্গলবার, রাত ১২:২৩, ১৪ই আষাঢ়, ১৪২৯ বঙ্গাব্দ, ২৯শে জিলকদ, ১৪৪৩ হিজরি
ভোলা ট্রিবিউনের পক্ষ হতে সকলকে জানাই প্রাণঢালা অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।
জাতীয় | আন্তর্জাতিক | ভোলা সদর | দৌলতখান | বোরহানউদ্দিন | লালমোহন | তজুমুদ্দিন | চরফ্যাশন | মনপুরা | ভোলার ইতিহাস ঐতিহ্য | বিশেষ সাক্ষাৎকার | প্রবাসীদের কথা | পাঠক কলাম |

লালমোহনে জনশুমারী ও গৃহগণনায় ব্যাপক অনিয়মে স্কুল ও মাদ্রারাসা শিক্ষকদের নিয়োগ

আপডেট : জুন, ১২, ২০২২, ১১:৩৮ অপরাহ্ণ

:

আরশাদ মামুন, লালমোহন:

ভোলার লালমোহনে জনশুমারী ও গৃহগণনার কাজে সুপারভাইজার এবং গণনাকারী নিয়োগে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। সরকারিভাবে বেকার যুবক-যুবতী ও ছাত্র-ছাত্রীদের এ কাজে নিয়োগ দেয়ার কথা থাকলেও লালমোহনে মানা হয়নি সে নির্দেশনা। পরিসংখ্যান অফিসের উপজেলা সেন্সাস কো-অর্ডিনেটর আরিফুর রহমান খন্দকারের যোগসাজসে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক, মাদ্রাসা-স্কুলের শিক্ষক, এমনকি মাদ্রাসার প্রধানদেরকেও একাজে নিয়োগ দেয়া হয়েছে। এতে প্রকৃত বেকার যুবক-যুবতীও ছাত্র-ছাত্রীরা সুযোগ পাননি সুপারভাইজার এবং গণনাকারী হিসেবে কাজ করার। আরিফুর রহমান খন্দকারের স্বেচ্ছাচারিতায় সাবেক পরিসংখ্যান কর্মকর্তার নিয়োগ দিয়ে যাওয়া পারভীন আক্তার ও সালমা জাহান বুলুর নাম নতুন তালিকা থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে বলেও অভিযোগ পাওয়া গেছে। জানা গেছে, লালমোহন পৌরসভাসহ উপজেলার ৯টি ইউনিয়নে সারাদেশের ন্যায় ১৫-২২ জুন জনশুমারী ও গৃহগণনার কাজ শুরু হবে। এ উপজেলায় ১২৩ জন সুপারভাইজার, ৬৬৭ জন গণনাকারী নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এর জন্য ২০২০ সালের ১ জানুয়ারি লালমোহন উপজেলার নিয়োগ বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়। বিজ্ঞপ্তিতে স্পস্ট লেখা আছে উপজেলায় স্থায়ীভাবে বসবাসকারী বেকার যুবক/যুব মহিলা এবং ছাত্র-ছাত্রীদের নিকট হতে দরখাস্ত আহবান করা হচ্ছে। এতে সুপারভাইজার পদের জন্য নুন্যতম স্নাতক বা সমমান পাস শিক্ষাগত যোগ্যতা নির্ধারণ করা আছে এবং গণনাকারীদের জন্য নূন্যতম এইচএসসি বা সমমান পাস হতে হবে বলা আছে। বয়স ২৩ থেকে ৪০ ও ১৮ থেকে ৩৫ বছরও নির্ধারণ করা আছে। কিন্তু খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, লালমোহনে এসবের কোন নিয়মনীতিই মানা হয়নি। লালমোহন আব্দুল মোতালেব দাখিল মাদরাসার সুপার ইব্রাহিম খলিল। তিনি ধলীগৌরনগর ইউনিয়নের সুপারভাইজার। অথচ তিনি কোন নিয়োগ পরীক্ষায়ই অংশগ্রহণ করেননি। তার কাছে জানতে চাইলে তিনি কোন সঠিক জবাব দিতে পারেননি। তার মতো এরকম বহু মাদরাসা শিক্ষককে নেওয়া হয়েছে। এর মধ্যে কেবল ধলীগৌরনগর ইউনিয়নেই মমিন নেছা দাখিল মাদরাসার শিক্ষক মোস্তফা কামাল, মাও: নাজিম উদ্দিন, মো: গিয়াস উদ্দিন, মাহমুদিয়া বালিকা দাখিল মাদরাসার অফিস সহকারী আবুল কাশেম, করিমুন্নেছা আলিম মাদরাসার মাও. মফিজ, করিমগঞ্জ ইসলামিয়া মাদ্রাসার শিক্ষক ঝিল্লুর রহমান, কুন্ডের হাওলা মাদরাসার তালেব, চতলা মাদরাসার পারভেজ, চতলা হাশেমিয়া মাদরাসার আলামিন এর নামও আছে। এই ইউনিয়নের আরেক সুপারভাইজার তানিয়া আক্তারও পরীক্ষা দেননি। নেই স্নাতক পাসও। তবুও সুপারভাইজার হিসেবে প্রশিক্ষণ দেওয়া হচ্ছে। সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদেরও সম্পূর্ণ অনিয়মভাবে নিয়োগ দিয়েছেন পরিসংখ্যান অফিসের এই আরিফুর রহমান খন্দকার। তার স্বেচ্ছাচারিতায় পশ্চিম চরউমেদ-৩ নং সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক সঞ্জিব দত্তকে আইটি সুপারভাইজার, লর্ডহার্ডিঞ্জ-২ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. মামুনুর রশীদকে লর্ডহার্ডিঞ্জ ইউনিয়নের সুপারভাইজার, দক্ষিণ রায়চাঁদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক সফিকুল ইসলাম, হাজী আব্দুর রশিদ সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষক মো. হুমায়ুন কবীর, মো. হাসনাইন আহমেদসহ এরকম বহু সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। বেকার যুবক-যুবতী ও ছাত্র-ছাত্রীদের পর্যাপ্ত সুযোগ না দিয়ে সরকারি ও বেসরকারি শিক্ষকদের নেওয়ায় আরিফুর রহমান খন্দকারের বিরুদ্ধে চরম ক্ষোভ প্রকাশ করেন অনেকেই। আগের পরিসংখ্যান কর্মকর্তা মাইদুল ইসলাম জানান, তিনি ৯৬ জনকে পরীক্ষা নিয়ে নিয়োগ দিয়ে গেছেন। আগের অফিসারের নিয়োগ পাওয়া সালমা আক্তার বুলু বলেন, তিনি নিয়োগ পরীক্ষা দিয়ে যাচাই বাছাই শেষে তালিকাভুক্ত হয়েছিলেন। তাকে ফরাজগঞ্জ ইউনিয়নের ৫নং ওয়ার্ডে দায়ীত্বও দেওয়া হয়। কিন্তু এখন জানলেন তার নাম নেই। একই অভিযোগ করলেন পারভীন আক্তারও। বর্তমান উপজেলা পরিসংখ্যান কর্মকর্তা আব্দুল হান্নান দুর্ঘটনায় পা ভেঙ্গে ঢাকার একটি হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এই সুযোগে তারই অফিসের সেন্সাস কো-অর্ডিনেটর আরিফুর রহমান খন্দকার কোন পরীক্ষা ছাড়াই নিয়োগ বাণিজ্য শুরু করেন। যদিও মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসের একাডেমিক সুপারভাইজার মদন মোহন মন্ডল ও সহকারী প্রাথমিক শিক্ষা অফিসার আকতার হোসেনসহ আরো ৩ কর্মকতাও জনশুমারী কার্যক্রম তদারকির সাথে জড়িত। তারা জানান, সকল নিয়োগ পরিসংখ্যান অফিস থেকে করে তাদের দেওয়া হয়েছে। আরিফুর রহমান খন্দকারের কাছে জানতে চাইলে তিনি বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতাদের উপর দোষ চাপিয়ে তাদের সুপারীশে স্কুল, মাদরাসার শিক্ষকদের নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে দাবী করেন। অথচ রাজনৈতিক নেতাদের সাথে আলাপকালে জানা গেছে, কেউ কোন সুপারীশ করেননি। যা করেছেন তা পরিসংখ্যান অফিসের আরিফই করেছেন।

আপনার মন্তব্য এই বক্সে লিখুন

উপদেষ্টা: মো.নকীব তালুকদার
উপদেষ্টা সম্পাদক: আবুল কালাম আজাদ,সাংগঠনিক সম্পাদক,বাংলাদেশ মফস্বল সাংবাদিক ফোরাম(বিএমএসএফ) ঢাকা।
ব্যবস্থাপনা সম্পাদক-মো.জাহিদুল ইসলাম দুলাল,সভাপতি লালমোহন জার্নালিষ্ট ফোরাম,ভোলা।
সম্পাদক: মো.শিমুল চৌধুরী
প্রকাশক:আরিফুর রহমান(রাহাত)
অফিস: ৭২৪,১ম তলা প্রেসক্লাব ভবন,ভোলা।
লালমোহন অফিস: ১২ নং ওয়ার্ড লালমোহন পৌরসভা,ভোলা।
বার্তা কক্ষ ই-মেইল: [email protected]
মোবাইল: ০১৭১৫-২৬১৬৪৫

প্রতিষ্ঠাতা: মোঃ মহির উদ্দিন (মাহিম)

কারিগরি সহায়তা: Next Tech

শিরোনাম :
★★ অর্থ মন্ত্রীর কাছে তামাক কর ও মূল্য বৃদ্ধি বিষয়ক প্রস্তাব পুনর্বিবেচনার দাবি জানালো ২০০ জন তরুণ ★★ পদ্মা সেতুর উদ্বোধনী শেষে ফেরার পথে ছাত্রলীগ নেতা নিখোঁজ ★★ মনপুরায় প্রধানমন্ত্রীর ১০টি বিশেষ উদ্ভাবনী উদ্যোগ নিয়ে প্রশিক্ষণ কর্মশালা অনুষ্ঠিত ★★ লালমোহনের আওয়ামী রাজনীতিতে বেলায়েত ভূঁইয়ার অবদান ভোলা যাবেনা # এমপি শাওন ★★ ভোলা জেলা আ’লীগকে আরো সুসংগঠিত করতে চান নতুন সাধারণ সম্পাদক মইনুল হোসেন বিপ্লব ★★ “বাঙ্গালীর স্বপ্ন, বাঙ্গালীর আশা” পদ্মা সেতু ★★ লালমোহনে সালিশে উভয় পক্ষ থেকে ঘুষ দাবির জেরে গোবর মেখে মেম্বারকে মারধর ★★ ময়মনসিংহে বৃস্টি উপেক্ষা করে রবীন্দ্র-নজরুল সঙ্গীত প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ★★ মনপুরায় জোয়ারের পানিতে বেড়ীবাঁধের বাহিরে ১০ গ্রাম প্লাবিত, পানিবন্দি ১০ হাজার মানুষ ★★ ভারতে মহানবী (সাঃ)কে অবমাননার প্রতিবাদে মনপুরায় মুসল্লিদের বিক্ষোভ-মিছিল সমাবেশ ও স্মারকলিপি প্রদান